মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ভিশন এবং মিশন

সাম্প্রতিক বছরসমূহের (৩ বছর) প্রধান অর্জনসমূহ:

শিশু উন্নয়ন কর্মসূচির আওতায় বাংলাদেশ শিশু একাডেমেী, দিনাজপুর জেলা শাখার গত ৩ বছরে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়িত হয়। এ সকল কার্যক্রমের মাধ্যমে প্রায় ৬৩,০০০জন শিশু অংশগ্রহণের সুবিধাপায়। প্রতি বছর ১৩ টি উপজেলা পর্যায় থেকে শুরু করে জাতীয় শিশু পুরস্কার ও দলগত ৪টি বিষয়ে মৌসুমি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। প্রতিবছর প্রায় ২০,৫০০ জন অধিক শিশু এ প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করে। প্রায় ৮০০জন শিশুকে সংগীত, নৃত্য, চিত্রাংকন, আবৃত্তি সহ মোট ৪টি বিষয়ে প্রশিক্ষন প্রদান করা হয় । বছরে প্রায় ৬৬০ জন শিশু লাইব্রেরিতে বই পড়ার সুযোগ লাভ করে এবং লাইব্রেরি ভিত্তিক প্রতিযোগিতায় প্রায় ৪৬০ জন শিশু অংশ গ্রহন করে। কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে প্রাপ্ত শিশুদের জন্য একটি মাসিক শিশু পত্রিকা ও বই নিয়মিত বিক্রয় করা হয় । শিশুর প্রারম্ভিক যত্ন ও বিকাশের সমন্বিত নীতি ২০১৩ অনুমোদিত হয়েছে। বাংলাদেশ শিশু একাডেমী, দিনাজপুর জেলা শাখার ১টি শিশু বিকাশ কেন্দ্র ও ১টি প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয় এর মাধ্যমে মোট ১৮জন দুঃস্থ অসহায় শিশুকে শিক্ষাপ্রদান করা হয়। এ ছাড়া শিশুতোষ চলচ্চিত্র প্রদর্শণ, শিশু নাট্য, সাংস্কতিক উৎসব, বিশিষ্ট সাংস্কতিক ব্যাক্তিত্বের জন্মদিন পালন।

সমস্যা ও চ্যালেঞ্জ:

শিশুদেরকে ভবিষ্যতের সুনাগরিক হিসাবে গড়ে তোলা এবং শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধসহ সকল শিশুকে কর্মসূচির অন্তর্ভূক্ত করতে পারা।

ভবিষ্যত পরিকল্পনা:

শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ এবং দেশের সকল দুঃস্থ শিশুকে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির অন্তর্ভূক্ত করা । জাতীয় শিশু উন্নয়ন নীতি২০১১ এর আলোকে দেশের সকল শিশুকে তার অধিকার নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্ম পরিকল্পনা প্রনয়নের মাধ্যমে শিশুদের দেশের ভবিষ্যত যোগ্য সুনাগরিক হিসাবে গড়ে তোলার কার্যক্রম গ্রহণ।

 

২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরের সম্ভাব্য অর্জনসমূহ:

  • ৪৫ টি শিশুতোষ গ্রন্থ প্রদর্শনী ও বিক্রয় করা হয় ।
  • ২৫০ শিশুকে বিভিন্ন বিষয়ে সাংস্কতিক প্রশিক্ষন প্রদান।
  • লাইব্রেরি অটোমেশনকরণ, কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী।
  • ৬০ জন দুঃস্থ শিশুকে শিশু বিকাশ ও প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাধ্যমে সুবিধা প্রদান ।
  • ২৫,০০০ জন শিশুর মনন, মেধা ও সাংস্কতিক বিকাশ ।

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter